নোয়াখালী জেলা শহরের বিপনী বিতান ও সুপার শপে অভিযানঃ১ লাখ ৫৫ হাজার ২শত টাকা জরিমানা

0

বিশেষ প্রতিনিধিঃ

নোয়াখালী জেলা শহরের বিপনী বিতান ও সুপার শপে (কেনাকাটা, বিগ বাজার, টার্গেট, ওয়ানমার্ট) অভিযান চালিয়ে ১ লাখ ৫৫ হাজার ২শত টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। রবিবার (১৯ মে) দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রোকনুজ্জামান খানের (Ruknuzzaman Khan Rukon) নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে সহযোগিতা করেন সহকারী পরিচালক দেবানন্দ সিনহা (Deba Nanda Sinha), ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কার্যালয়, নোয়াখালী।

গোপন সংবাদের উপর ভিত্তি করে জনস্বার্থে পরিচালিত এ অভিযানকালে দেখা যায়, পণ্যের মোড়কে আমদানিকারকের সীল না থাকা, প্রতিশ্রুত সেবা প্রদান না করা, মূল্য তালিকা না টাঙ্গানো, মেয়াদ উত্তীর্ণ ও ক্ষতিকর পণ্য বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ, ক্রয়ের মূল্যের চেয়ে প্রায় শতকরা ৫৫-১২০ভাগ অতিরিক্ত মূল্য আদায়, মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা জানার পরেও নিম্নমানের ৫২টি পণ্যের বিভিন্ন পণ্য বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন, পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসন নোয়াখালীর দাম নির্দিষ্ট করে দেওয়া পণ্যে নির্ধারিত দামের চেয়ে অতিরিক্ত দামে পণ্য বিক্রয় ইত্যাদি যা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১, ৪২, ৪৩ ধারায় অপরাধ।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনের ৩৭ লঙ্গন করে পণ্যের মোড়কে আমদানিকারকের সীল বিহীন পণ্য বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে সংরক্ষণের অপরাধে কেনাকাটা সুপার শপ কে ৩০হাজার টাকা, বিপনি বিতান বিগ বাজার কে ৫০হাজার টাকা, বিপনি বিতান টার্গেট কে ৫০হাজার টাকা, ৪১ ধারা লঙ্গনের দায়ে সুপার শপ ওয়ান মার্টকে ২৫হাজার টাকা এবং দন্ড বিধি ১৮৬০ এর ১৮৭ ধারায় মোবাইল কোর্টকে সাহায্য করার জন্য আইনগত বাধ্য হওয়া সত্বেও সহযোগিতা না করার অপরাধে তাজুল ইসলাম (দিলিলপুর, বেগমগঞ্জ)কে ২০০টাকা মোট ৫ মামলায় ১লাখ ৫৫হাজার ২শত টাকা জরিমানা দন্ড আরোপ করে জরিমানা আদায় করা হয়। অভিযান পরিচালনাকালে দেখা যায়, বিপনি বিতানগুলোতে কাপড় ও কসমেটিকস সামগ্রী বিক্রয়ের ক্ষেত্রে শতকরা ৪৫ভাগ থেকে ১২০ভাগ বেশি মুনাফা করছে এসব দোকানের ব্যবসায়ীগণ। এসময় ব্যবসায়ীদের আরও মানবিক ও লাভের পরামর্শ দেওয়া হয় এবং ভবিষ্যত পরিদর্শনে একই মূল্য পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও ব্যবসায়ীদের সতর্ক করে দেওয়া হয়।

অভিযানকালে আরও দেখা যায়, মহামান্য হাইকোর্টের দেওয়া নির্দেশনা অনুযায়ী নির্দিষ্ট করে দেওয়া ৫২টি নিম্নমানের ভোগ্য পণ্য ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। আজকের আভিযান চালানো ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্টানে কিছু নিম্নমানের পণ্য পাওয়া যায় ও তাকে জরিমানা দন্ড আরোপ করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকে দোকানী ও সাধারণ ক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এসব পণ্য সম্পর্কে বিস্তারিত বলা হয় এবং দোকানীদের এসব পণ্য সংরক্ষণ না করা ও ক্রেতাদের এসব পণ্য না ক্রয়ের জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়।

নিত্য প্রয়োজনীয় নিম্নমানের ভোগ্য পণ্য ও অন্যান্য পণ্য সম্পর্কে যে কোন অভিযোগ তাৎক্ষণিকভাবে জেলা প্রশাসন নোয়াখালী ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ কার্যালয়, নোয়াখালীকে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকালীন পেশকারের দায়িত্ব পালন করেন মোঃ আজাদ উদ্দিন। জরিমানা থেকে আদায় টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করার জন্য এক্সিকিউটিভ কোর্ট বেঞ্চ সহকারী শাহাদৎ হোসেন শুভকে (এস এইচ শুভ) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাকালে আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সহযোগিতা করেন সুধারাম মডেল থানা পুলিশ।

ক্রাইম ডায়রি///ক্রাইম//আইন শৃঙ্খলা

0total visits,0visits today

About Author

Leave A Reply